সূরা হিজর বাংলা অনুবাদ

সূরা হিজর বাংলা অনুবাদ
সর্বমোট আয়াত-৯৯

بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَـٰنِ الرَّحِيمِ
শুরু করছি মহান আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অসীম দয়ালু

الر ۚ تِلْكَ آيَاتُ الْكِتَابِ وَقُرْآنٍ مُّبِينٍ

বাংলা অর্থ:

১। আলিফ, লাম, রা। এইগুলি হইতেছে পূর্ণ কিতাব এবং স্পষ্ট কোরআনের আয়াতসমূহ।

رُّبَمَا يَوَدُّ الَّذِينَ كَفَرُوا لَوْ كَانُوا مُسْلِمِينَ

বাংলা অর্থ:

২। (ক্বিয়ামত দিবসে) কাফেরার বারংবার কামনা করিবে যে, কি উত্তম হইতÑযদি তাহারা (পৃথিবী তে) মুসলমান হইত।

ذَرْهُمْ يَأْكُلُوا وَيَتَمَتَّعُوا وَيُلْهِهِمُ الْأَمَلُ ۖ فَسَوْفَ يَعْلَمُونَ

বাংলা অর্থ:

৩। আপনি তাহাদিগকে তাহাদের অবস্থায় থাকিতে দিন, খুব খাইয়া লউক ও আরাম উপভোগ করুক এবং কাল্পনিক আশা তাহাদিগকে ভুলাইয়া রাখুক, শীঘ্রই ইহারা প্রকৃত অবস্থা জানিতে পারিবে।

وَمَا أَهْلَكْنَا مِن قَرْيَةٍ إِلَّا وَلَهَا كِتَابٌ مَّعْلُومٌ

বাংলা অর্থ:

৪। আর আমি যতগুলি জনপদ (তাহাদের কুফরের কারণে) ধ্বংস করিয়াছি উহার সবগুলির জন্যই একটা নির্দিষ্ট সময় লিখিত ছিল।

مَّا تَسْبِقُ مِنْ أُمَّةٍ أَجَلَهَا وَمَا يَسْتَأْخِرُونَ

বাংলা অর্থ:

৫। কোন সম্প্রদায়ই না নিজ নির্ধারিত সময়ের পূর্বে ধ্বংস হইয়াছে, আর না পিছনে রহিয়াছে।

وَقَالُوا يَا أَيُّهَا الَّذِي نُزِّلَ عَلَيْهِ الذِّكْرُ إِنَّكَ لَمَجْنُونٌ

বাংলা অর্থ:

৬। আর (মক্কার) এই কাফেররা বলিল, হে ঐ ব্যক্তি-যাহার প্রতি কোরআন নাযিল করা হইয়াছে-তুমি তো উন্মাদ;

لَّوْ مَا تَأْتِينَا بِالْمَلَائِكَةِ إِن كُنتَ مِنَ الصَّادِقِينَ

বাংলা অর্থ:

৭। তবে আমাদের নিকট কেন আনয়ন করিতেছ না ফেরেশতাদিগকে-যদি তুমি সত্যবাদী হইয়া থাক।

مَا نُنَزِّلُ الْمَلَائِكَةَ إِلَّا بِالْحَقِّ وَمَا كَانُوا إِذًا مُّنظَرِينَ

বাংলা অর্থ:

৮। (আল্লাহ্ বলেন,) আমি কেবল চরম মীমাংসার জন্যই ফেরেশতা নাযিল করিয়া থাকি এবং সে সময় তাহাদিগকে অবকাশও দেওয়া হইত না।

إِنَّا نَحْنُ نَزَّلْنَا الذِّكْرَ وَإِنَّا لَهُ لَحَافِظُونَ

বাংলা অর্থ:

৯। আমিই কোরআন নাযিল করিয়াছি এবং আমিই উহার রক্ষক।

وَلَقَدْ أَرْسَلْنَا مِن قَبْلِكَ فِي شِيَعِ الْأَوَّلِينَ

বাংলা অর্থ:

১০। আর আপনার পূর্বেও পয়গম্বরদিগকে প্রেরণ করিয়াছিলাম পূর্বকালীন বহু সম্প্রদায়ের মধ্যে।

وَمَا يَأْتِيهِم مِّن رَّسُولٍ إِلَّا كَانُوا بِهِ يَسْتَهْزِئُونَ

বাংলা অর্থ:

১১। আর তাহাদের নিকট এমন কোন রাসূল আসেন নাই যাহাদিগকে তাহারা বিদ্রুপ করে নাই।

كَذَ‌ٰلِكَ نَسْلُكُهُ فِي قُلُوبِ الْمُجْرِمِينَ

বাংলা অর্থ:

১২। এইভাবেই আমি এই অপরাধপরায়ণদের অন্তরে এই বিদ্রুপ স্থাপন করিয়া দেই,

لَا يُؤْمِنُونَ بِهِ ۖ وَقَدْ خَلَتْ سُنَّةُ الْأَوَّلِينَ

বাংলা অর্থ:

১৩। (যাহারা কারণ) তাহারা কোরআনের প্রতি ঈমান আনয়ন করে না, এবং এই রীতি প্রাচীনদের হইতেই চলিয়া আসিতেছে।

সূরা হিজর বাংলা অনুবাদ শানে নুযুলঃ

১। কেননা, যখনই কোন নূতন যন্ত্রণা উপস্থিত হইবে, তখনই তাহাদের মনে হইনে যে, আমাদের কুফরীর এই শাস্তির কারণ। তখনই ইসলাম গ্রহণ না করার জন্য তাহাদের নূতন ভাবে পরিতাপ হইবে।(ব: কো:)
২। বরং নিধারিত সময়েই ধ্বংস হইয়াছে, সুতরাং সময় আসিয়া উপস্থিত হইলেই ইহাদিগকে ও শাস্তি দেওয়া হইবে। (ব: কো:)
৩। কাজেই ইহা হইতে কেহ কিছু বিলোপ করিতে বা ইহার সহিত কিছু যোগ করিতে সঙ্গম হইবে না। যেমন অন্যান্য উম্মতেরা আসমানী কিতাবগুলিতে করিয়াছে। ঐ সমস্ত কিতাবের কোন বিরুদ্ধ বাদী না থাকা সত্ত্বেও উহাদের কপিসমূহ পরিবর্তন পরিবর্ধন হইয়া গিয়াছে। পক্ষান্তরে বিরোধী দলের অবিরত চেষ্টা সত্ত্বেও সমস্ত কোরআন কোন প্রকার পরিবর্তন হইতে পারে নাই। (ব: কো:)

وَلَوْ فَتَحْنَا عَلَيْهِم بَابًا مِّنَ السَّمَاءِ فَظَلُّوا فِيهِ يَعْرُجُونَ

বাংলা অর্থ:

১৪। আর যদি আমি তাহাদের জন্য আসমানে কোন দরজা খুলিয়া দেই, অত:পর তাহারা দিনের বেলায় উহা দিয়া (আসমানে) আরোহণ করে,

لَقَالُوا إِنَّمَا سُكِّرَتْ أَبْصَارُنَا بَلْ نَحْنُ قَوْمٌ مَّسْحُورُونَ

বাংলা অর্থ:

১৫। তবুও এইরূপ বলিবে যে, আমাদের চোখে তো ভেলকি লাগাইয়া দেওয়া হইয়াছিল, বরং আমাদের উপর তো সম্পূর্ণ রূপে জাদু করিয়া রাখা হইয়াছে।

وَلَقَدْ جَعَلْنَا فِي السَّمَاءِ بُرُوجًا وَزَيَّنَّاهَا لِلنَّاظِرِينَ

বাংলা অর্থ:

১৬। আর নি:সন্দেহে আমি আসমানে বড় বড় নক্ষত্র সৃজন করিয়াছি এবং দর্শকদের জন্য উহাকে সজ্জিত করিয়াছি,

وَحَفِظْنَاهَا مِن كُلِّ شَيْطَانٍ رَّجِيمٍ

বাংলা অর্থ:

১৭। এবং উহাতে প্রত্যেক মরদূদ শয়তান হইতে রক্ষা করিয়াছি,

إِلَّا مَنِ اسْتَرَقَ السَّمْعَ فَأَتْبَعَهُ شِهَابٌ مُّبِينٌ

বাংলা অর্থ:

১৮। কিন্তু হাঁ, যদি কোন কথা লুক্কায়িতভাবে শুনিয়া পালায়, তবে তাহার পিছনে উজ্জ্বল অগ্নিশিখা ধাবমান হয়।

وَالْأَرْضَ مَدَدْنَاهَا وَأَلْقَيْنَا فِيهَا رَوَاسِيَ وَأَنبَتْنَا فِيهَا مِن كُلِّ شَيْءٍ مَّوْزُونٍ

বাংলা অর্থ:

১৯। আর আমি ভূপৃষ্ঠেকে বিস্তৃত করিয়াছি এবং তাহাতে ভারি ভারি পর্বতসমূহ স্থাপন করিয়াছি, এবং তাহাতে সর্বপ্রকার বস্তু এক নির্দিষ্ট পরিমাণে উৎপাদন করিয়াছি।

وَجَعَلْنَا لَكُمْ فِيهَا مَعَايِشَ وَمَن لَّسْتُمْ لَهُ بِرَازِقِينَ

বাংলা অর্থ:

২০। আর আমি উহাতে তোমাদের জন্য জীবিকার উপকরণ প্রস্তুত করিয়াছি এবং উহাদিগকেও জীবিকা দান করিয়াছি যাহাদিগকে তোমরা জীবিকা দাও না।

وَإِن مِّن شَيْءٍ إِلَّا عِندَنَا خَزَائِنُهُ وَمَا نُنَزِّلُهُ إِلَّا بِقَدَرٍ مَّعْلُومٍ

বাংলা অর্থ:

২১। আর (জীবিকা উপযোগী) যত বস্তু আছে উহার ভান্ডার সমস্তই আমার নিকট রহিয়াছে, এবং আমি উহা এক নির্ধারিত পরিমাণে নাযিল করিতে থাকি।

وَأَرْسَلْنَا الرِّيَاحَ لَوَاقِحَ فَأَنزَلْنَا مِنَ السَّمَاءِ مَاءً فَأَسْقَيْنَاكُمُوهُ وَمَا أَنتُمْ لَهُ بِخَازِنِينَ

বাংলা অর্থ:

২২। আর আমিই বায়ুসমূহকে প্রেরণ করি যাহা মেঘমালাকে পানিতে পূর্ণ করিয়া দেয়, অত:পর আামিই আসমান হইতে বারি বর্ষণ করিয়া থাকি, অনন্তর সেই পানি তোমাদিগকে পান করিতে দেই, এবং তোমরা এত পানি জমাইয়া রাখিতে পারিতে না।

সূরা হিজর বাংলা অনুবাদ শানে নুযুলঃ

১। মক্কার অধিবাসী কাফেরদের মধ্যে কেহ কেহ বলিত যে, মুহাম্মদ (দ:) ফেরেশতাগণ আমাদের সামনে মূতিমান হইয়া যদি বলে যে, এই ব্যক্তি বাস্তবিকই আল্লাহর প্রেরিত নবী, তবেই আমরা আপনাকে সত্য নবী বলিয়া বিশ্বাস করিব। তাহাদের এই উক্তির উত্তরে আল্লাহ তা আলা ১৪ ও ১৫ নং আয়াত দুইটি নাযিল করেন। (মু: কো 🙂
২। হযরত মুহাম্মদ (দ:) এর জন্মের বা নুবুওয়াত লাভের পর হইতে শয়তানের আসমানে যাওয়া বন্ধ হইয়াছে। ছোট খাট ব্যাপারগুলি ফেরেশতাগণ আসমানে আলোচনা করার পরে আবার কোন কোন সময় মেঘের উপরেও আলোচনা করিয়া থাকেন। উহারই নিকটে কোথাও লুক্কায়িত শয়তান তাহা শুনিয়া থাকে। (ব: কো:)

وَإِنَّا لَنَحْنُ نُحْيِي وَنُمِيتُ وَنَحْنُ الْوَارِثُونَ

বাংলা অর্থ:

২৩। আর আমিই জীবন দান করি ও মৃত্যু দান করি এবং আমিই (স্থায়ী) থাকিয়া যাইব।

وَلَقَدْ عَلِمْنَا الْمُسْتَقْدِمِينَ مِنكُمْ وَلَقَدْ عَلِمْنَا الْمُسْتَأْخِرِينَ

বাংলা অর্থ:

২৪। আর আমিই তোমাদের পূর্ববর্তীদিগকেও জানি এবং তোমাদের পরবর্তীদিগকেও জানি।

وَإِنَّ رَبَّكَ هُوَ يَحْشُرُهُمْ ۚ إِنَّهُ حَكِيمٌ عَلِيمٌ

বাংলা অর্থ:

২৫। এবং নিশ্চয় আপনার রব্বই ইহাদের সকলকে (কিয়ামতে) একত্রিত করিবেন; নিশ্চয় তিনি হেকমতওয়ালা, মহাজ্ঞানী।

وَلَقَدْ خَلَقْنَا الْإِنسَانَ مِن صَلْصَالٍ مِّنْ حَمَإٍ مَّسْنُونٍ

বাংলা অর্থ:

২৬। এবং নিশ্চয় আমি মানবকে খন্খনে মাটি দ্বারা-যাহা পচা কাদা হইতে তৈরী-সৃষ্টি করিয়াছি,

وَالْجَانَّ خَلَقْنَاهُ مِن قَبْلُ مِن نَّارِ السَّمُومِ

বাংলা অর্থ:

২৭। এবং তাঁহার (অর্থাৎ আদমের) পূর্বে জিনকে সৃষ্টি করিয়াছিলাম আগুন হইতে, যাহা উত্তপ্ত বায়ু ছিল।

وَإِذْ قَالَ رَبُّكَ لِلْمَلَائِكَةِ إِنِّي خَالِقٌ بَشَرًا مِّن صَلْصَالٍ مِّنْ حَمَإٍ مَّسْنُونٍ

বাংলা অর্থ:

২৮। আর সেই সময়টি স্মরণীয়, যখন আপনার পরওয়ারদেগার ফেরেশতাদিগকে বলিলেন, আমি একটি মানব কে খন্খনে মাটি দ্বারা-যাহা পচা কাদা হইতে গঠিত হইবে-সৃষ্টি করিতে চাহিতেছি।

فَإِذَا سَوَّيْتُهُ وَنَفَخْتُ فِيهِ مِن رُّوحِي فَقَعُوا لَهُ سَاجِدِينَ

বাংলা অর্থ:

২৯। অতএব, যখন আমি উহাকে পূর্ণরূপে গড়িয়া তুলিব এবং তাহাতে নিজের (তরফ হইতে) প্রাণ প্রবিষ্ট করিয়া দিব, তখন তোমরা সকলে উহার সম্মুখে সিজ্দায় পড়িয়া যাইও।

فَسَجَدَ الْمَلَائِكَةُ كُلُّهُمْ أَجْمَعُونَ

বাংলা অর্থ:

৩০। অনন্তর ফেরেশতরা সকলেই আদম (আ:)-কে সিজ্দা করিল,

إِلَّا إِبْلِيسَ أَبَىٰ أَن يَكُونَ مَعَ السَّاجِدِينَ

বাংলা অর্থ:

৩১। ইবলীস ব্যতীত; সে এইকথা কবূল করিল না যে, সিজ্দাকারীদের সহিত শামিল হয়।

قَالَ يَا إِبْلِيسُ مَا لَكَ أَلَّا تَكُونَ مَعَ السَّاجِدِينَ

বাংলা অর্থ:

৩২। আল্লাহ্ বলিলেন, হে ইবলীস! তোমার জন্য কি কারণ দেখা দিল যে, তুমি সজ্দাকারীদের দলভুক্ত হইলে না ?

সূরা হিজর বাংলা অনুবাদ শানে নুযুলঃ

১। এই আয়াতে বলা হয়েছে যে, বায়ুসমূহ মেঘকে পানিতে পূর্ণ করিয়া দেয়। অর্থাৎ উক্ত মেঘকে বায়ু শৈত্যের স্তরে লইয়া এবং তথায় মেঘের মধ্যে পানির উৎপত্তি করে। অতএব, মেঘের মধ্যে পানির উৎপত্তির কারণ হইল বায়ু। আয়াতে আরও বলা হইয়াছেঃ আমি আসমান হইতে পানি বর্ষণ করি ইহার অর্থ এই যে, মেঘের মধ্যে পানির উৎপত্তি হয়। কিন্তু উহাতে মাত্রা পূরণের জন্য আল্লাহ আসমান হইতে আরও পানি প্রেরণ করিয়া থাকেন। সুতরাং অনুধা বৈজ্ঞানিক মতবাদের সহিত এই আয়াতের অনৈকা নাই। (ব: কো:)
২। অর্থাৎ উক্ত অগ্নির মধ্যে ধ্রু উৎপাদক অংশ ছিল না। কেননা , ধ্রু উৎপাদক ঘন অংশগুলির কারণেই অগ্নি দৃষ্টিগোচর হইয়া থাকে। এই কথাটিতে অন্যত্র বলিয়াছেন, আমি জিন জাতিকে খাঁটি আগুন হইতে সৃষ্টি করিয়াছি। (ব: কো:)

قَالَ لَمْ أَكُن لِّأَسْجُدَ لِبَشَرٍ خَلَقْتَهُ مِن صَلْصَالٍ مِّنْ حَمَإٍ مَّسْنُونٍ

বাংলা অর্থ:

৩৩। সে বলিতে লাগিল, আমি এমন নহি যে, মানবকে সজদা করিব, যাহাকে আপনি খন্খনে মাটি দ্বারা-যাহা পচা কাদা হইতে গঠিত-সৃষ্টি করিয়াছেন।

قَالَ فَاخْرُجْ مِنْهَا فَإِنَّكَ رَجِيمٌ

বাংলা অর্থ:

৩৪। আদেশ হইল, তুমি আসমান হইতে বাহির হইয়া যাও, কেননা নি:সন্দেহে তুমি বিতাড়িত হইলে,

وَإِنَّ عَلَيْكَ اللَّعْنَةَ إِلَىٰ يَوْمِ الدِّينِ

বাংলা অর্থ:

৩৫। এবং নিশ্চয় তোমার প্রতি লা‘নত থাকিবে কিয়ামত দিবস পর্যন্ত।

قَالَ رَبِّ فَأَنظِرْنِي إِلَىٰ يَوْمِ يُبْعَثُونَ

বাংলা অর্থ:

৩৬। (ইবলীস) বলিল, হে রব্ব ! তবে আমাকে (মৃত্যু হইতে) অবকাশ দিন কিয়ামত দিবস পর্যন্ত ।

قَالَ فَإِنَّكَ مِنَ الْمُنظَرِينَ

বাংলা অর্থ:

৩৭। আদেশ হইল, তবে তোমাকে অবকাশ দেওয়া গেল,

إِلَىٰ يَوْمِ الْوَقْتِ الْمَعْلُومِ

বাংলা অর্থ:

৩৮। নির্দিষ্ট সময়ের তারিখ পর্যন্ত।

قَالَ رَبِّ بِمَا أَغْوَيْتَنِي لَأُزَيِّنَنَّ لَهُمْ فِي الْأَرْضِ وَلَأُغْوِيَنَّهُمْ أَجْمَعِينَ

বাংলা অর্থ:

৩৯। ইবলীস বলিল, হে রব্ব ! যেহেতু আপনি আমাকে গোমরাহ করিলেন, আমি প্রতিজ্ঞা করিতেছি যে, আমি পৃথিবীতে তাহাদের চক্ষে পাপকার্যসমূহকে সুশোভন করিয়া দেখাইব এবং তাহাদের সকলকে পথভ্রষ্ট করিব,

إِلَّا عِبَادَكَ مِنْهُمُ الْمُخْلَصِينَ

বাংলা অর্থ:

৪০। আপনার সে বান্দাগণ ব্যতীত যাহারা তন্মধ্যে বিশিষ্ট।

قَالَ هَـٰذَا صِرَاطٌ عَلَيَّ مُسْتَقِيمٌ

বাংলা অর্থ:

৪১। আল্লাহ্ বলিলেন, হা, ইহা একটি সোজা পথ যাহা আমা পর্যন্ত পৌঁছে।

إِنَّ عِبَادِي لَيْسَ لَكَ عَلَيْهِمْ سُلْطَانٌ إِلَّا مَنِ اتَّبَعَكَ مِنَ الْغَاوِينَ

বাংলা অর্থ:

৪২। বাস্তবিক আমার সেই বান্দাদের উপর তোমার কিছুমাত্র ও ক্ষমতা চলিবে না, কিন্তু হাঁ, বিপথগামীদের মধ্যে যাহারা তোমার অনুসরণ করিয়া চলে।

وَإِنَّ جَهَنَّمَ لَمَوْعِدُهُمْ أَجْمَعِينَ

বাংলা অর্থ:

৪৩। আর উহাদের সকলের জন্য দোযখের প্রতিশ্রুতি রহিয়াছে,

لَهَا سَبْعَةُ أَبْوَابٍ لِّكُلِّ بَابٍ مِّنْهُمْ جُزْءٌ مَّقْسُومٌ

বাংলা অর্থ:

৪৪। যাহার সাতটি দরজা আছে; প্রত্যেকটি দরজার (মধ্য দিয়া যাওয়ার) জন্য তাহাদের পৃথক পৃথক ভাগ রহিয়াছে।

সূরা হিজর বাংলা অনুবাদ শানে নুযুলঃ

১। অর্থাৎ ক্বিয়ামত পর্যন্ত তুই আমার রহমত হইতে বঞ্চিত হইয়া থাকিবি। তোর প্রার্থনা কবূল হইবে না। তোর প্রতি কোন অনুগ্রহ হইবে না। কখনও তোর তওবা কবূল হইবে না ইহাতে স্পষ্টই বুঝা যায় যে, ক্বিয়ামতের দিনও সে অনুগ্রহের পাত্র হওয়ার সম্ববনা নাই। (ব: কো:)
২। অর্থাৎ যদি আদমকে সিজদা না করার কারণেই আমাকে বিতাড়িত করিয়া থাকেন, তবে আমাকে ক্বিয়ামত পর্যন্ত মৃত্যু হইতে অবকাশ দিন। যেন আমি তাহা হইতে ও তাহার বংশধরগণ হইতে প্রতিশোধ লইতে পারি। (ব: কো:)
৩। অর্থাৎ খাঁটি বান্দা হওয়ার উপায় হইতেছে আমার ও আমার পয়গম্বরের পূর্ণ আনুগ্রহ এবং নেকআমল করা। (ব: কো:)
৪। কাহারও মতে ইহার অর্থ দোযখের সাতটি স্তর। যে যেই শাস্তির যোগ্য হইবে সে সেই স্তরে প্রবেশ করিবে। (ব: কো:)

إِنَّ الْمُتَّقِينَ فِي جَنَّاتٍ وَعُيُونٍ

বাংলা অর্থ:

৪৫। নিশ্চয় মুত্তাক্কী লোকগণ উদ্যানসমূহে এবং ঝরনাসমূহে থাকিবে;

ادْخُلُوهَا بِسَلَامٍ آمِنِينَ

বাংলা অর্থ:

৪৬। (এবং বলা হইবে), তোমরা উহাতে শান্তি ও নিরাপত্তার সহিত প্রবেশ কর।

وَنَزَعْنَا مَا فِي صُدُورِهِم مِّنْ غِلٍّ إِخْوَانًا عَلَىٰ سُرُرٍ مُّتَقَابِلِينَ

বাংলা অর্থ:

৪৭। আর (পৃথিবীতে) তাহাদের মনে যে বিদ্বেষ ছিল আমি তৎসমুদয় দূর করিয়া দিব, সকলেই ভাই ভাই রূপে উচ্চসনসমূহে মুখামুখি (হইয়া) বসিবে।

لَا يَمَسُّهُمْ فِيهَا نَصَبٌ وَمَا هُم مِّنْهَا بِمُخْرَجِينَ

বাংলা অর্থ:

৪৮। সেইখানে তাহাদিগকে সামান্য কষ্টও স্পর্শ করিবে না আর না তাহারা বহিষ্কৃত হইবে।

نَبِّئْ عِبَادِي أَنِّي أَنَا الْغَفُورُ الرَّحِيمُ

বাংলা অর্থ:

৪৯। আপনি আমার বান্দাদিগকে জানাইয়া দিন যে, আমি অত্যন্ত ক্ষমাশীল, পরম দয়ালুও,

وَأَنَّ عَذَابِي هُوَ الْعَذَابُ الْأَلِيمُ

বাংলা অর্থ:

৫০। আর ইহাও যে আমার শাস্তিও যন্ত্রণাপ্রদ শাস্তি।

وَنَبِّئْهُمْ عَن ضَيْفِ إِبْرَاهِيمَ

বাংলা অর্থ:

৫১। আর আপনি তাহাদিগকে ইব্রাহীমের মেহমানদের সংবাদও জানাইয়া দিন।

إِذْ دَخَلُوا عَلَيْهِ فَقَالُوا سَلَامًا قَالَ إِنَّا مِنكُمْ وَجِلُونَ

বাংলা অর্থ:

৫২। যখন তাহারা (ফেরেশতাগণ) তাঁহার নিকট আসিল, তখন তাহারা আসসালামু আলাইকুম বলিল; ইবরাহীম বলিলেন, আমরা তো তোমাদের ব্যাপারে ভীত হইয়া পড়িয়াছি।

قَالُوا لَا تَوْجَلْ إِنَّا نُبَشِّرُكَ بِغُلَامٍ عَلِيمٍ

বাংলা অর্থ:

৫৩। তাহারা বলিল, আপনি ভীত হইবেন না, আমরা আপনাকে এক সন্তানের সুসংবাদ দিতেছি, যিনি বড় বিদ্বান হইবেন।

قَالَ أَبَشَّرْتُمُونِي عَلَىٰ أَن مَّسَّنِيَ الْكِبَرُ فَبِمَ تُبَشِّرُونَ

বাংলা অর্থ:

৫৪। ইব্রাহীম বলিলেন, তোমরা কি আমাকে সুসংবাদ দিতেছ এইরূপ অবস্থায় যখন আমার উপর বার্ধক্য আসিয়া পড়িয়াছে, অতএব, কিসের সুসংবাদ দিতেছ?

قَالُوا بَشَّرْنَاكَ بِالْحَقِّ فَلَا تَكُن مِّنَ الْقَانِطِينَ

বাংলা অর্থ:

৫৫। তাহারা বলিল, আমরা আপনাকে বাস্তব বিষয়ের সুসংবাদ দিতেছি, সুতরাং আপনি নিরাশ হইবেন না।

قَالَ وَمَن يَقْنَطُ مِن رَّحْمَةِ رَبِّهِ إِلَّا الضَّالُّونَ

বাংলা অর্থ:

৫৬। ইব্রাহীম বলিলেন, নিজ পরওয়ারদেগারের রহমত হইতে কে নিরাশ হয় পথভ্রষ্ট লোকেরা ব্যতীত?

قَالَ فَمَا خَطْبُكُمْ أَيُّهَا الْمُرْسَلُونَ

বাংলা অর্থ:

৫৭। তিনি বলিলেন, হে ফেরেশতাগণ! তোমাদের সম্মুখে এখন কি জটিল কাজ রহিয়াছে?

সূরা হিজর বাংলা অনুবাদ শানে নুযুলঃ

১। অর্থাৎ ঈমানদার লোকেরা নিষ্পাপ হইলে কিংবা পাপী হইয়াও পাপ মার্জিত হইলে প্রথম হইতেই, অন্যথায় শাস্তি ভোগের পর বেহেশতে প্রবেশ করিবেন। (ব: কো:)
২। যেন ইহা অবগত হইয়া আমরা বান্দাদের মনে ঈমানও নেক আমলের প্রতি উৎসাহ এবং পাপ কার্যের প্রতি ভয়ের সঞ্চয় হয়। (ব: কো:)
৩। ইহা একটি আশ্চর্য ব্যাপার। কাজেই আশ্চর্য বোধ করিতেছি আল্লাহর অসাধ্য বলিয়া মনে করিতেছি না। (ব: কো:)
৪। অর্থাৎ আমরা আপনাকে বাস্তব সত্যের সংবাদই দিতেছি। আপনি বাধ্যকের প্রতি লক্ষ্য করিবেন না। ইহাতে নৈরাশ্যের উৎপত্তি হইতে পারে। (ব: কো:)
৫। যেহেতু ইব্রাহীম নবী সুলভ জ্ঞান দ্বারা জানিতে পারিয়া ছিলেন যে, ইহারা এই সুসংবাদ ছাড়া আরও কোন গুরুতর কাজের উদ্দেশ্যে আসিয়াছে, কাজেই তিনি এই প্রশ্ন করিলেন। (ব: কো:)

قَالُوا إِنَّا أُرْسِلْنَا إِلَىٰ قَوْمٍ مُّجْرِمِينَ

বাংলা অর্থ:

৫৮। ফেরেশতাগণ বলিলেন, আমরা এক অপরাধী সম্প্রদায় (লূত সম্প্রদায়)Ñএর প্রতি প্রেরিত হইয়াছি,

إِلَّا آلَ لُوطٍ إِنَّا لَمُنَجُّوهُمْ أَجْمَعِينَ

বাংলা অর্থ:

৫৯। লূতের পরিজন ব্যতীত; আমরা তাহাদের সকলকেই রক্ষা করিব,

إِلَّا امْرَأَتَهُ قَدَّرْنَا ۙ إِنَّهَا لَمِنَ الْغَابِرِينَ

বাংলা অর্থ:

৬০। তাঁহার পত্নী ছাড়া, কেননা, আমরা তাহার সম্বন্ধে সাব্যস্ত করিয়া রাখিয়াছি যে, সে অবশ্যই ঐ পাপাচারীদের মধ্যে থাকিয়া যাইবে।

فَلَمَّا جَاءَ آلَ لُوطٍ الْمُرْسَلُونَ

বাংলা অর্থ:

৬১। অত:পর যখন সেই ফেরেশতাগণ লূত-পরিবারবর্গের নিকট আসিলেন,

قَالَ إِنَّكُمْ قَوْمٌ مُّنكَرُونَ

বাংলা অর্থ:

৬২। বলিতে লাগিলেন, তোমরা তো অপরিচিত লোক (মনে হয়)।

قَالُوا بَلْ جِئْنَاكَ بِمَا كَانُوا فِيهِ يَمْتَرُونَ

বাংলা অর্থ:

৬৩। তাহারা বলিল, (আমরা মানুষ নহি;) বরং আমরা আপনার নিকট সেই বস্তু (শাস্তি) লইয়া আসিয়াছি সেই সম্বন্ধে তাহারা সন্দেহ করিতেছিল।

وَأَتَيْنَاكَ بِالْحَقِّ وَإِنَّا لَصَادِقُونَ

বাংলা অর্থ:

৬৪। আর আমরা আপনার নিকট অবশ্যম্ভাবী জিনিস লইয়া আসিয়াছি এবং আমরা সম্পূর্ণ সত্যবাদী।

فَأَسْرِ بِأَهْلِكَ بِقِطْعٍ مِّنَ اللَّيْلِ وَاتَّبِعْ أَدْبَارَهُمْ وَلَا يَلْتَفِتْ مِنكُمْ أَحَدٌ وَامْضُوا حَيْثُ تُؤْمَرُونَ

বাংলা অর্থ:

৬৫। অতএব, আপনি রাত্রির যে কোন অংশে নিজের পরিজনকে লইয়া সরিয়া পড়ুন এবং আপনি সকলের পিছনে থাকুন, আর আপনাদের কেহ যেন পিছনের দিকে ফিরিয়া ও না দেখে, এবং আপনাদের প্রতি যেই স্থানের আদেশ হইয়াছে সেই দিকে চলিয়া যাইবেন।

وَقَضَيْنَا إِلَيْهِ ذَ‌ٰلِكَ الْأَمْرَ أَنَّ دَابِرَ هَـٰؤُلَاءِ مَقْطُوعٌ مُّصْبِحِينَ

বাংলা অর্থ:

৬৬। আর আমি লূতের নিকট এই সিদ্ধান্ত পাঠাইলাম যে, প্রভাত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাহাদের মূল একেবারে কর্তিত হইয়া যাইবে (ধ্বংস হইয়া যাইবে)

وَجَاءَ أَهْلُ الْمَدِينَةِ يَسْتَبْشِرُونَ

বাংলা অর্থ:

৬৭। আর নগরের লোকেরা খুব আনন্দ করিতে করিতে (লূত – গৃহে) উপস্থিত হইল।

قَالَ إِنَّ هَـٰؤُلَاءِ ضَيْفِي فَلَا تَفْضَحُونِ

বাংলা অর্থ:

৬৮। লূত বলিলেন, ইহারা আমার মেহমান, অতএব, আমাকে অপমানিত করিও না,

وَاتَّقُوا اللَّهَ وَلَا تُخْزُونِ

বাংলা অর্থ:

৬৯। আর আল্লাহ এক ভয় কর এবং আমাকে বে-ইজ্জত করিও না।

সূরা হিজর বাংলা অনুবাদ শানে নুযুলঃ

১। আপনি পিছনে থাকুন এবং লক্ষ্য রাখুন আপনার পরিজনের মধ্যে কেহ যেন থাকিয়া না যায়; কিংবা যাইয়া ফিরিয়া না আসে এবং আপনার ভয়ে কেহ পিছনের দিকে ফিরিয়া না তাকায়; বরং সকলে দ্রুত গতিতে চলিতে থাকিবে। (ব: কো:)
২। তাহাদিগকে শাম দেশের দিকে যাইতে আদেশ করা হইয়াছিল। (ব: কো:)
৩। ফেরেশাগণের উপরোক্ত আলাপের বিষয়গুলি মূলত: পরে ঘটিয়াছিল কিন্তু ধ্বংস ও সংরক্ষেণের গুরুত্ব প্রকাশের উদ্দেশ্যে উহা পূর্বে বর্ণিত হইল। সম্মুখের দিকে যাহা বর্ণিত হইয়াছে, তাহা আগে ঘটিয়াছিল। (ব: কো:)
৪। অর্থাৎ নগরের লোকেরা যখন জানিতে পারিল যে, লূত (আ:) এর বাড়িতে সুদর্শন চেহারার কয়েকজন বালক আসিয়াছে, তখন তাহারা আনন্দ করিতে করতে অসৎ উদ্দেশ্য লইয়া লূত (আ:) এর গৃহের দিকে আসিল। (ব: কো:)

قَالُوا أَوَلَمْ نَنْهَكَ عَنِ الْعَالَمِينَ

বাংলা অর্থ:

৭০। তাহারা বলিল, আমরা কি আপনাকে সমগ্র পৃথিবীর লোকদের সম্বন্ধে নিষেধ করি নাই?

قَالَ هَـٰؤُلَاءِ بَنَاتِي إِن كُنتُمْ فَاعِلِينَ

বাংলা অর্থ:

৭১। লূত বলিলেন, (তোমাদের ঘরে) আমার এই কন্যাগণ রহিয়াছে-যদি তোমরা আমার কথা মান;

لَعَمْرُكَ إِنَّهُمْ لَفِي سَكْرَتِهِمْ يَعْمَهُونَ

বাংলা অর্থ:

৭২। আপনার প্রাণের শপথ, তাহারা নিজেদের নেশায় মত্ত ছিল।

فَأَخَذَتْهُمُ الصَّيْحَةُ مُشْرِقِينَ

বাংলা অর্থ:

৭৩। অনন্তর সূর্য উদিত হইতেই এক প্রচন্ড শব্দ আসিয়া তাহাদিগকে চাপিয়া ধরিল।

فَجَعَلْنَا عَالِيَهَا سَافِلَهَا وَأَمْطَرْنَا عَلَيْهِمْ حِجَارَةً مِّن سِجِّيلٍ

বাংলা অর্থ:

৭৪। অত:পর আমি সেই জনপদের ঊর্ধ্বস্থ ভাগকে (উলটাইয়া) অধ:স্থ করিয়া দিলাম এবং তাহাদের উপর কঙ্কর-প্রস্তসমূহ বর্ষণ করিতে লাগিলাম;

إِنَّ فِي ذَ‌ٰلِكَ لَآيَاتٍ لِّلْمُتَوَسِّمِينَ

বাংলা অর্থ:

৭৫। এই ঘটনায় কয়েকটি নিদর্শন রহিয়াছে গভীর দৃষ্টিসম্পন্ন লোকদের জন্য।

وَإِنَّهَا لَبِسَبِيلٍ مُّقِيمٍ

বাংলা অর্থ:

৭৬। আর এই জনপদগুলি একটি চলাচল পথের ধারে অবস্থিত।

إِنَّ فِي ذَ‌ٰلِكَ لَآيَةً لِّلْمُؤْمِنِينَ

বাংলা অর্থ:

৭৭। উক্ত জনপদগুলির মধ্যে মু’মেনদের জন্য বহু আদেশ রহিয়াছে;

وَإِن كَانَ أَصْحَابُ الْأَيْكَةِ لَظَالِمِينَ

বাংলা অর্থ:

৭৮। আর (শোআয়বের উম্মত) অরণ্যবাসীরা বড় যালেম ছিল,

فَانتَقَمْنَا مِنْهُمْ وَإِنَّهُمَا لَبِإِمَامٍ مُّبِينٍ

বাংলা অর্থ:

৭৯। সুতরাং আমি তাহাদিগ হইতে (-ও) প্রতিশোধ গ্রহণ করিলাম। এবং উভয় (কাওমের) জনপদ প্রকাশ্য রাস্তার পার্শ্বে অবস্থিত;

وَلَقَدْ كَذَّبَ أَصْحَابُ الْحِجْرِ الْمُرْسَلِينَ

বাংলা অর্থ:

৮০। এবং হিজরের অধিবাসীরা (-ও) পয়গম্বরগণকে মিথ্যা সাব্যস্ত করিল,

وَآتَيْنَاهُمْ آيَاتِنَا فَكَانُوا عَنْهَا مُعْرِضِينَ

বাংলা অর্থ:

৮১। এবং আমি তাহাদিগকে আমার নিদর্শনাবলী দান করিলাম, পক্ষান্তরে তাহারা উহা হইতে মুখ ফিরাইয়া রহিল,

وَكَانُوا يَنْحِتُونَ مِنَ الْجِبَالِ بُيُوتًا آمِنِينَ

বাংলা অর্থ:

৮২। এবং তাহারা পাহাড় কাটিয়া তাহাতে গৃহ নির্মাণ করিত যেন নিরাপদে থাকে।

فَأَخَذَتْهُمُ الصَّيْحَةُ مُصْبِحِينَ

বাংলা অর্থ:

৮৩। অত:পর প্রাত:কালে বিকট শব্দ আসিয়া তাহাদিগকে আক্রমণ করিল,

فَمَا أَغْنَىٰ عَنْهُم مَّا كَانُوا يَكْسِبُونَ

বাংলা অর্থ:

৮৪। বস্তুত: কর্মকুশলতা তাহাদের কোনই কাজে আসিল না ।

وَمَا خَلَقْنَا السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضَ وَمَا بَيْنَهُمَا إِلَّا بِالْحَقِّ ۗ وَإِنَّ السَّاعَةَ لَآتِيَةٌ ۖ فَاصْفَحِ الصَّفْحَ الْجَمِيلَ

বাংলা অর্থ:

৮৫। আর আমি সৃষ্টি করি নাই আসমানসমূহ ও যমীন কে এবং উহাদের মধ্যস্তিত যাবতীয় বস্তুকে কিন্তু সার্থকভাবে; আর কিয়ামত অবশ্যই আগমনকারী, অতএব, আপনি ক্ষমা করুন উত্তম ভাবে।

সূরা হিজর বাংলা অনুবাদ শানে নুযুলঃ

১। অর্থাৎ তাহারা বলিল, আমরা আপনাকে বহুবার নিষেধ করিয় ছিলাম যে, কোন আগস্তককে মেহমান রূপে গ্রহণ করিবেন না। আপনি ইহাদিগকে মেহমান বানাইলেন কেন ? কাজেই আপনার অপকর্মের জন্য আপনিই দায়ী। (ব:কো:)
২। অর্থাৎ লূত (আ:) বলিলেন, এই অপকর্ম করার কি প্রয়োজন ? যদ্দরণ মোহমানকারী করিতেও নিষেধ করিতেছ। কাম প্রবৃত্তি দমনের জন্য তোমাদের ঘরের আসার বধূগণ, কন্যাগণ অর্থাৎ তোমাদের নিজ নিজ স্ত্রীগণই বিদ্যামান রহিয়াছে। (ব:কো:)
৩। অর্থাৎ এই ধ্বংসপ্রাপ্ত জনপদগুলি আরবদেশ হইতে সিরিয়াভিমুখী যাতায়াতের পথের ধারে অবস্থিত। (ব:কো:)
৪। কেননা, মুমিগণ এই ঘটণাগুলি চিন্তা করিয়া আল্লাহর অসীম ক্ষমতায় আস্থাবান হয়। পক্ষান্তরে কাপেরেরা এই ব্যাপারগুলিকে প্রাকৃতিক কারণে ও ঘটনাক্রমে সংঘটিত বলিয়া ধারণ করে। (ব:কো:)

إِنَّ رَبَّكَ هُوَ الْخَلَّاقُ الْعَلِيمُ

বাংলা অর্থ:

৮৬। নিশ্চয়, আপনার রব্ব মহা স্রষ্টা, মহাজ্ঞানী।

وَلَقَدْ آتَيْنَاكَ سَبْعًا مِّنَ الْمَثَانِي وَالْقُرْآنَ الْعَظِيمَ

বাংলা অর্থ:

৮৭। আর আমি আপনাকে সাতটি আয়াত (সূরা ফাতেহা) প্রদান করিয়াছি-যাহা বার বার (নামাযে) পাঠ করা হয়, এবং মহান কোরআন দান করিয়াছি।

لَا تَمُدَّنَّ عَيْنَيْكَ إِلَىٰ مَا مَتَّعْنَا بِهِ أَزْوَاجًا مِّنْهُمْ وَلَا تَحْزَنْ عَلَيْهِمْ وَاخْفِضْ جَنَاحَكَ لِلْمُؤْمِنِينَ

বাংলা অর্থ:

৮৮। আপনি স্বীয় চক্ষু উঠাইয়া সেই বস্তুর প্রতি দৃষ্টি করিবেন না যাহা আমি বিভিন্ন শ্রেনীর কাফেরদিগকে উপভোগের জন্য দিয়া রাখিয়াছ, আর তাহাদের প্রতি দু:খ ও করিবেন না এবং মুসলমানদের প্রতি সদয়ভাব পোষণ করিবেন।

وَقُلْ إِنِّي أَنَا النَّذِيرُ الْمُبِينُ

বাংলা অর্থ:

৮৯। আর বলিয়া দিন যে, আমি তো প্রকাশ্যে ভয় প্রদর্শনকারী,

كَمَا أَنزَلْنَا عَلَى الْمُقْتَسِمِينَ

বাংলা অর্থ:

৯০। যেমন আমি (আযাব) নাযিল করিয়াছি বিভক্তকারীদের উপর,

الَّذِينَ جَعَلُوا الْقُرْآنَ عِضِينَ

বাংলা অর্থ:

৯১। যাহারা আসমানী কিতাব বিভিন্ন অংশে বিভক্ত করিয়া রাখিয়াছিল।

فَوَرَبِّكَ لَنَسْأَلَنَّهُمْ أَجْمَعِينَ

বাংলা অর্থ:

৯২। সুতরাং আপনার পরওয়ারদেগারের কসম, আমি অবশ্যই কৈফিয়ত চাহিব তাহাদের সকলের নিকট,

عَمَّا كَانُوا يَعْمَلُونَ

বাংলা অর্থ:

৯৩। তাহাদের কার্যকলাপের।

فَاصْدَعْ بِمَا تُؤْمَرُ وَأَعْرِضْ عَنِ الْمُشْرِكِينَ

বাংলা অর্থ:

৯৪। ফলকথা, আপনি উহা স্পষ্টরূপে শুনাইয়া দিন যেই বিষয় আপনাকে আদেশ করা হইয়াছে এবং এই মুশরেকদের পরোয়া করিবেন না।

إِنَّا كَفَيْنَاكَ الْمُسْتَهْزِئِينَ

বাংলা অর্থ:

৯৫। আমিই আপনার জন্য যথেষ্ট বিদ্রুপকারীদের বিরুদ্ধে,

الَّذِينَ يَجْعَلُونَ مَعَ اللَّهِ إِلَـٰهًا آخَرَ ۚ فَسَوْفَ يَعْلَمُونَ

বাংলা অর্থ:

৯৬। যাহারা আল্লাহর সহিত অপর উপাস্য সাব্যস্ত করে (তাহাদের বিরুদ্ধেও), সুতরাং তাহারা অতি শীঘ্রই জানিতে পারিবে।

وَلَقَدْ نَعْلَمُ أَنَّكَ يَضِيقُ صَدْرُكَ بِمَا يَقُولُونَ

বাংলা অর্থ:

৯৭। আর বাস্তবিক আমার জানা আছে যে, আপনি উহাতে মন:ক্ষুন্ন হন, তাহারা যে সমস্ত কথা বলে,

فَسَبِّحْ بِحَمْدِ رَبِّكَ وَكُن مِّنَ السَّاجِدِينَ

বাংলা অর্থ:

৯৮। অতএব, আপনি আপনার রব্বের প্রশংসা ও পবিত্রতা বর্ণনা করিতে থাকুন এবং নামায আদায়কারীদের অন্তভুক্ত থাকুন।

وَاعْبُدْ رَبَّكَ حَتَّىٰ يَأْتِيَكَ الْيَقِينُ

বাংলা অর্থ:

৯৯। এবং নিজ রব্বের এবাদত করিতে থাকুন, যে পর্যন্ত না আপনার মৃত্যু আসিয়া উপস্থিত হয়।

সূরা হিজর বাংলা অনুবাদ শানে নুযুলঃ

১। অর্থাৎ কাফেরকে যে সমস্ত পার্থিব নিয়ামত উপভোগের জন্য দেওয়া হইয়াছে, আপনি তৎপ্রতি ক্রোধের সহিতও দৃষ্টি করিবেন না। আর আফসুসের সহিতও না। ক্রোধের সহিত দৃষ্টি করার অর্থ এই যে, আল্লাহর শক্রদিগকে এ সমস্ত উত্তম নিয়ামত দিয়া রাখিয়াছেন কেন? না দেওয়াই ভাল ছিল। আর দু:খের সহিত দৃষ্টি করার অর্থ এই যে, নি‘আমতই ইহাদের জন্য বিপদ হইয়াছে। (ব: কো:)
২। ইহারা পূর্বকালের ইহুদী ও নাছারা সম্প্রদায়। ইতিহাসে ইহারা কুখ্যাত হইয়া রহিয়াছে। নবীদের বিরোধিতা করার দরুন ইহাদের প্রতি নানা প্রকারের আযাব নাযিল হইয়াছিল। (ব: কো:)

সূরা ইব্রাহিম এর বাংলা অনুবাদ ও শানে নজুল পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন-
সূরা রা’দ এর বাংলা অনুবাদ ও শানে নজুল পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন-
সূরা ইউসুফ এর বাংলা অনুবাদ ও শানে নজুল পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন-
সূরা হুদ এর বাংলা অনুবাদ ও শানে নজুল পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন-
সূরা ইউনুস এর বাংলা অনুবাদ ও শানে নজুল পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন-
সূরা আত-তাওবা এর বাংলা অনুবাদ ও শানে নজুল পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন-
সূরা আনফাল এর বাংলা অনুবাদ ও শানে নজুল পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন-
সূরা আরাফ এর বাংলা অনুবাদ ও শানে নজুল পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন-
সূরা আনআম এর বাংলা অনুবাদ ও শানে নজুল পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন-
সূরা আল-মায়েদা এর বাংলা অনুবাদ ও শানে নজুল পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন-
সূরা আন-নিসা এর বাংলা অনুবাদ ও শানে নজুল পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন-
আমাদের, ফেসবুক পেইজে লাইক, শেয়ার এবং কমেন্টস করে আমাদের সাথেই থাকুন।