সূরা-আন-নিসা বাংলা অর্থ (আয়াত ৫৪-৫৪)

সূরা-আন-নিসা বাংলা আয়াত-১৭৬

بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَـٰنِ الرَّحِيمِ
শুরু করছি মহান আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অসীম দয়ালু

فَمِنْهُم مَّنْ آمَنَ بِهِ وَمِنْهُم مَّن صَدَّ عَنْهُ ۚ وَكَفَىٰ بِجَهَنَّمَ سَعِيرًا

বাংলা অর্থ:

৫৫। অনন্তর তাহাদের কেহ কেহ তো উহার প্রতি ঈমান আনিল, আর কেহ কেহ এমনও ছিল যে, উহা হইতে বিমুখ রহিল; এবং দোযখের জলন্ত অগ্নি (-র শাস্তি তাহাদের জন্য) যথেষ্ট।

إِنَّ الَّذِينَ كَفَرُوا بِآيَاتِنَا سَوْفَ نُصْلِيهِمْ نَارًا كُلَّمَا نَضِجَتْ جُلُودُهُم بَدَّلْنَاهُمْ جُلُودًا غَيْرَهَا لِيَذُوقُوا الْعَذَابَ ۗ إِنَّ اللَّهَ كَانَ عَزِيزًا حَكِيمًا

বাংলা অর্থ:

৫৬। নিশ্চয় যাহারা আমার আয়াতসমূহকে অস্বীকার করিয়াছে, আমি সত্বরই তাহাদিগকে এক ভীষণ অগ্নিতে দাখিল করিব; যখনই একবার তাহাদের চর্ম জ্বলিয়া যাইবে তৎক্ষণাৎই আমি তাহাদের পূর্ব-চর্মের স্থলে অন্য চর্ম সৃষ্টি করিয়া দিব যেন তাহারা আযাবই ভুগিতে থাকে; নিশ্চয় আল্লাহ্ তা‘আলা মহা পরাক্রমশীল, প্রজ্ঞাময়।

وَالَّذِينَ آمَنُوا وَعَمِلُوا الصَّالِحَاتِ سَنُدْخِلُهُمْ جَنَّاتٍ تَجْرِي مِن تَحْتِهَا الْأَنْهَارُ خَالِدِينَ فِيهَا أَبَدًا ۖ لَّهُمْ فِيهَا أَزْوَاجٌ مُّطَهَّرَةٌ ۖ وَنُدْخِلُهُمْ ظِلًّا ظَلِيلًا

বাংলা অর্থ:

৫৭। আর যাহারা ঈমান আনিয়াছে এবং নেক কাজ করিয়াছে, আমি সত্বরাই তাহাদিগকে এমন উদ্যানসমূহে দাখিল করিব যাহারা নিম্নে নহরসমূহ বহিতে থাকিবে, তাহারা উহাতে অনন্তকাল অবস্থান করিবে; তাহাদের জন্য উহাতে পাক-ছাপ বিবিগণ থাকিবে, এবং আমি তাহাদিগকে অত্যন্ত ঘন ছায়ায় দাখিল করিব।

إِنَّ اللَّهَ يَأْمُرُكُمْ أَن تُؤَدُّوا الْأَمَانَاتِ إِلَىٰ أَهْلِهَا وَإِذَا حَكَمْتُم بَيْنَ النَّاسِ أَن تَحْكُمُوا بِالْعَدْلِ ۚ إِنَّ اللَّهَ نِعِمَّا يَعِظُكُم بِهِ ۗ إِنَّ اللَّهَ كَانَ سَمِيعًا بَصِيرًا

বাংলা অর্থ:

৫৮। নিশ্চয় আল্লাহ্ তা‘আলা তোমাদিগকে এই বিষয়ে আদেশ করিতেছেন যে, হকদারকে তাহাদের হক পৌঁছাইয়া দাও আর যখন জনগণের মীমাংসা কর তখন ন্যায়ের সহিত মীমাংসা করিও; নিশ্চয় আল্লাহ্ তা‘আলা তোমাদিগকে যে বিষয়ে উপদেশ দেন তাহা অতি উত্তম; নিশ্চয় আল্লাহ্ তা‘আলা পূর্ণরূপে শুনেন, পূর্ণরূপে দেখেন।

সূরা-আন-নিসা বাংলা শানে নুযূল

১) অর্থাৎ, ইব্রাহীমী গোত্রে যে সকল নবী অতিক্রান্ত হইয়াছেন, তাহাদের প্রতিও কেহ কেহ ঈমান আনিয়াছিল, আবার কেহ কেহ মুখ ফিরাইয়া রহিয়াছিল। অতএব, যদি আপনার যুগেও কেহ কেহ আপনার প্রেরিতত্ব ও কোরআন শরীফের প্রতি ঈমান না আনে, তবে পরিতাপের কিছুই নাই। (বঃ কোঃ)
২) মক্কা বিজয়ের দিন হুযূর (দঃ) কা‘বা গৃহের চাবি রক্ষক ওয়মান ইবনে আবি তাল্হার নিকট হইতে চাবি লইলে হযরত আব্বাস আবেদন করিলেন, এখন হইতে এই কাজের দায়িত্ব আমাকে দেওয়া হউক। এই সমন্ধে এই আয়াতটি নাযিল হইয়াছে। (লোঃ নুঃ)

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا أَطِيعُوا اللَّهَ وَأَطِيعُوا الرَّسُولَ وَأُولِي الْأَمْرِ مِنكُمْ ۖ فَإِن تَنَازَعْتُمْ فِي شَيْءٍ فَرُدُّوهُ إِلَى اللَّهِ وَالرَّسُولِ إِن كُنتُمْ تُؤْمِنُونَ بِاللَّهِ وَالْيَوْمِ الْآخِرِ ۚ ذَ‌ٰلِكَ خَيْرٌ وَأَحْسَنُ تَأْوِيلًا

বাংলা অর্থ:

৫৯। হে ঈমানদারগণ ! তোমরা আল্লাহর আনুগত্য কর ও তাঁহার রাসূলের আনুগত্য কর এবং তোমাদের মধ্যে যাহারা উপরস্থ তাহাদেরও, অনন্তর যদি তোমরা কোন বিষয়ে পরস্পর দ্বিমত হও, তবে ঐ বিষয়কে আল্লাহ্ ও তাঁহার রাসূলের উপর হওয়ালা করিয়া দাও যদি তোমরা আল্লাহর প্রতি এবং কিয়ামত দিবসের প্রতি ঈমান রাখ; এই বিষয়গুলি উত্তম এবং ইহার পরিণামও খুব ভাল।

أَلَمْ تَرَ إِلَى الَّذِينَ يَزْعُمُونَ أَنَّهُمْ آمَنُوا بِمَا أُنزِلَ إِلَيْكَ وَمَا أُنزِلَ مِن قَبْلِكَ يُرِيدُونَ أَن يَتَحَاكَمُوا إِلَى الطَّاغُوتِ وَقَدْ أُمِرُوا أَن يَكْفُرُوا بِهِ وَيُرِيدُ الشَّيْطَانُ أَن يُضِلَّهُمْ ضَلَالًا بَعِيدًا

বাংলা অর্থ:

৬০। আপনি কি তাহাদিগকে লক্ষ্য করেন নাই ! যাহারা দাবী করে যে, তাহারা ঐ কিতাবের প্রতিও ঈমান রাখে যাহা আপনার প্রতি নাযিল করা হইয়াছে এবং ঐ কিতাবের প্রতিও যাহা আপনার পূর্বে নাযিল করা হইয়াছে, এই অবস্থায় তাহারা নিজেদের মোকদ্দমাগুলি শয়তানের নিকট লইয়া যাইতে চায় অথচ তাহাদিগকে এই আদেশ করা হইয়াছে, যেন তাহাকে না মানে; আর শয়তান ইহাদিগকে পথভ্রষ্ট করিয়া বহু দূরে লইয়া যাইতে চায়।

وَإِذَا قِيلَ لَهُمْ تَعَالَوْا إِلَىٰ مَا أَنزَلَ اللَّهُ وَإِلَى الرَّسُولِ رَأَيْتَ الْمُنَافِقِينَ يَصُدُّونَ عَنكَ صُدُودًا

বাংলা অর্থ:

৬১। আর যখন তাহাদিগকে বলা হয়, আস এই হুকুমের দিকে যাহা আল্লাহ্ নাযিল করিয়াছেন এবং (আস) তাঁহার রাসূলের দিকে, তখন আপনি মুনাফেকদের এই অবস্থা দেখিবেন যে, তাহারা আপনার নিকট আসিতে বিরত থাকিতেছে।

فَكَيْفَ إِذَا أَصَابَتْهُم مُّصِيبَةٌ بِمَا قَدَّمَتْ أَيْدِيهِمْ ثُمَّ جَاءُوكَ يَحْلِفُونَ بِاللَّهِ إِنْ أَرَدْنَا إِلَّا إِحْسَانًا وَتَوْفِيقًا

বাংলা অর্থ:

৬২। অনন্তর কি দশা হইবে ! যখন তাহাদের উপর কোন বিপদ উপনীত হয় তাহাদের ঐ কর্মের দরুন যাহাকিছু তাহারা অতঃপর আপনার নিকটে আসে খোদার নামে শপথ করিয়া-এতদ্ভিন্ন আমাদের অন্য কোন উদ্দেশ্য ছিল না যে, (উভয় দলের মধ্যে) কোন কল্যাণ (-এর পন্থা) বাহির হয় এবং পরস্পর মিলন হইয়া যায়।

সূরা-আন-নিসা বাংলা শানে নুযূল

১) দুইজন মুসলমানের মধ্যে ঝগড়া হইলে যদি একজন বলে, চল, শরীঅত অনুযায়ী ইহার মীমাংসা হউক, তদুত্তরে অপর জন যদি বলে, আমি শরীঅত মানি না, তবে সে কাফের হইয়া যাইবে। (মুঃ কোঃ)
২) জনৈক ইহুদীর সহিত জৈনিক মুনাফেকের ঝগড়া হইলে ইহুদী মুহাম্মদ (দঃ)-কে সালিস মানিল। সে জানিত, ধর্ম বিষয়ে মতবিরোধ থাকিলেও তিনি পক্ষপাতিত্ব করিবেন না। আর মুনাফেকের দাবি মিথ্যা ছিল, সে মনে করিল, আমি বাহিরে মুসলমান হইলেও রাসূলুল্লাহর নিকট বাক চাতুরীতে কাজ হইবে না। অপর দিকে কা‘ব ইব্নে আশরাফ একজন অসৎ ইহুদী সরদার, তাহাকে পক্ষে আনিতে পারিব, কাজেই সে কা‘বকে সালিস মানিল। অবশেষে উভয়েই হুযূরের নিকট বিচার প্রার্থী হইল, এবং ইহুদীর জয় হইল।

মুনাফেক ইহাতে সন্তুষ্ট না হইয়া ওমরের নিকট গেল। সে ধারণা করিয়াছিল ওমর আমার পক্ষেই রায় দিবেন, ইহুদী মনে করিল, ওমর ন্যায়পরায়ণ। তিনি আমার পক্ষেই রায় দিবেন। কাজেই মুনাফেকের প্রস্তাবে সে সম্মত হইয়া হযরত ওমরের নিকট গেল এবং পূর্ন ঘটনা বর্ণনা করিল, এবং ইহাও বলিল যে, হুযূর (দঃ) ইহার মীমাংসা করিয়াছিলেন কিন্তু এই ব্যক্তি মানে নাই। হযরত ওমর তৎক্ষণাৎ মুনাফেকের শিরোচ্ছেদ করিয়া বলিলেন, নবীর মীমাংসা অমান্য করার এই শাস্তি। অনন্তর মুনাফেকের ওয়ারিসগণ হুযুরের খেদমতে যাইয়া বলিল, একটা আপোষ মীমাংসার জন্যই ওমরের নিকট যাওয়া হইয়াছিল, অনর্থক তিনি উহাকে হত্যা করিয়াছেন; কাজেই আমরা হত্যার প্রতিশোধ চাই। এই আয়াতগুলিতে ঘটনার মূল তথ্য প্রকাশ করা হইয়াছে। (মুঃ কোঃ)

أُولَـٰئِكَ الَّذِينَ يَعْلَمُ اللَّهُ مَا فِي قُلُوبِهِمْ فَأَعْرِضْ عَنْهُمْ وَعِظْهُمْ وَقُل لَّهُمْ فِي أَنفُسِهِمْ قَوْلًا بَلِيغًا

বাংলা অর্থ:

৬৩। ইহারা ঐসকল লোক-আল্লাহ্ অবগত আছেন যাহাকিছু তাহাদের অন্তরে আছে, সুতরাং আপনি তাহাদের (ত্রুটির) প্রতি লক্ষ্য করিবেন না এবং তাহাদিগকে সদুপদেশ দিতে থাকুন আর তাহাদিগকে বিশেষ করিয়া তাহাদের নিজেদের (সংশোধন) সম্বন্ধে যথোপযোগী বাণী বলিয়া দিন।

وَمَا أَرْسَلْنَا مِن رَّسُولٍ إِلَّا لِيُطَاعَ بِإِذْنِ اللَّهِ ۚ وَلَوْ أَنَّهُمْ إِذ ظَّلَمُوا أَنفُسَهُمْ جَاءُوكَ فَاسْتَغْفَرُوا اللَّهَ وَاسْتَغْفَرَ لَهُمُ الرَّسُولُ لَوَجَدُوا اللَّهَ تَوَّابًا رَّحِيمًا

বাংলা অর্থ:

৬৪। আর আমি পয়গম্বরগণকে বিশেষ করিয়া এই জন্যই প্রেরণ করিয়াছি, যেন আল্লাহর আদেশে তাঁহাদের আনুগত্য করা হয়; আর যদি তাহারা নিজেদের ক্ষতি সাধনের পর আপনার নিকট উপস্থিত হইত এবং আল্লাহর  নিকট ক্ষমা চাহিত এবং রাসূলও তাহাদের জন্য আল্লাহর সমীপে ক্ষমা চাহিতেন, তবে আবশ্যই তাহারা আল্লাহ্কে তওবা কবূলকারী, করুণাময় পাইত।

فَلَا وَرَبِّكَ لَا يُؤْمِنُونَ حَتَّىٰ يُحَكِّمُوكَ فِيمَا شَجَرَ بَيْنَهُمْ ثُمَّ لَا يَجِدُوا فِي أَنفُسِهِمْ حَرَجًا مِّمَّا قَضَيْتَ وَيُسَلِّمُوا تَسْلِيمًا

বাংলা অর্থ:

৬৫। অতএব, আপনার পরওয়ারদেগারের শপথ ! ইহারা ঈমানদার হইবে না, যে পর্যন্ত না তাহাদের মধ্যে যে-সব ঝগড়া-বিপদ সংঘটিত হয়, উহার মীমাংসা আপনার দ্বারা করাইয়া লয়, অতঃপর আপনার এই মীমাংসায় তাহারা নিজেদের অন্তরে কোনরূপ সংকীর্ণতা বোধ না করে এবং পুরাপুরি মানিয়া লয়।

وَلَوْ أَنَّا كَتَبْنَا عَلَيْهِمْ أَنِ اقْتُلُوا أَنفُسَكُمْ أَوِ اخْرُجُوا مِن دِيَارِكُم مَّا فَعَلُوهُ إِلَّا قَلِيلٌ مِّنْهُمْ ۖ وَلَوْ أَنَّهُمْ فَعَلُوا مَا يُوعَظُونَ بِهِ لَكَانَ خَيْرًا لَّهُمْ وَأَشَدَّ تَثْبِيتًا

বাংলা অর্থ:

৬৬। আর যদি আমি মানুষের প্রতি ফরয করিয়া দিতাম যে, তোমরা আত্মহত্যা কর কিংবা স্বীয় দেশ হইতে বাহির হইয়া যাও, তবে অল্প কয়েকজন ব্যতীত এই আদেশ কেহই পালন করিত না; আর যদি তাহারা-তাহাদিগকে যেরূপ উপদেশ দেওয়া হয় তদনুযায়ী আমল করিত, তবে তাহাদের জন্য উত্তম হইত এবং ঈমানকে অধিকতর দৃঢ়কারী হইত।

সূরা-আন-নিসা বাংলা শানে নুযূল

১) অর্থাৎ, প্রাণ দেওয়ার আদেশ করা হইলে মুনাফেকেরা তাহা পালন করিতে পারিত না। এখানে তো শুধু রসূলের আনুগত্য করিয়া তাঁহাকে বিচারক মানিতে বলা হইয়াছে। ইহা মানা উত্তম ছিল।(মুঃ কোঃ)

وَإِذًا لَّآتَيْنَاهُم مِّن لَّدُنَّا أَجْرًا عَظِيمًا

বাংলা অর্থ:

৬৭। আর এই অবস্থায় আমি তাহাদিগকে বিশেষ করিয়া নিজ সন্নিধান হইতে মহা পুরষ্কার প্রদান করিতাম।

وَلَهَدَيْنَاهُمْ صِرَاطًا مُّسْتَقِيمًا

বাংলা অর্থ:

৬৮। এবং আমি অবশ্যই তাহাদিগকে সরল পথ প্রদর্শন করিতাম।

وَمَن يُطِعِ اللَّهَ وَالرَّسُولَ فَأُولَـٰئِكَ مَعَ الَّذِينَ أَنْعَمَ اللَّهُ عَلَيْهِم مِّنَ النَّبِيِّينَ وَالصِّدِّيقِينَ وَالشُّهَدَاءِ وَالصَّالِحِينَ ۚ وَحَسُنَ أُولَـٰئِكَ رَفِيقًا

বাংলা অর্থ:

৬৯। আর যে ব্যক্তি আল্লাহ্ ও তাঁহার রাসূলের অনুগত হয়, তবে এইরূপ ব্যক্তিগণও সেই মহান ব্যক্তিগণও সহচর হইবেন যাঁহাদের প্রতি আল্লাহ্ তা‘আলা অনুগ্রহ করিয়াছেন অর্থাৎ, নবীগণ এবং ছিদ্দীকগণ এবং শহীদগণ এবং নেক্কারগণ, আর এই মহাপুরুষগণ অতি উত্তম সহচর।

ذَ‌ٰلِكَ الْفَضْلُ مِنَ اللَّهِ ۚ وَكَفَىٰ بِاللَّهِ عَلِيمًا

বাংলা অর্থ:

৭০। ইহা (শুধু) অনুগ্রহ আল্লাহর হুযুর হইতে; এবং সর্বজ্ঞ হিসাবে আল্লাহ্ই যথেষ্ট।

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا خُذُوا حِذْرَكُمْ فَانفِرُوا ثُبَاتٍ أَوِ انفِرُوا جَمِيعًا

বাংলা অর্থ:

৭১। হে ঈমানদারগণ ! নিজেরা সতর্কতা অবল্বন কর, ইতঃপর (জেহাদের জন্য) বাহির হও, পৃথক পৃথকভাবে অথবা সম্বিলিতভাবে।

وَإِنَّ مِنكُمْ لَمَن لَّيُبَطِّئَنَّ فَإِنْ أَصَابَتْكُم مُّصِيبَةٌ قَالَ قَدْ أَنْعَمَ اللَّهُ عَلَيَّ إِذْ لَمْ أَكُن مَّعَهُمْ شَهِيدًا

বাংলা অর্থ:

৭২। আর তোমাদের দলে কতক এমন লোক আছে যাহারা পশ্চাৎপদ হইয়া পড়ে অনন্তর যদি তোমাদের কোন বিপদ উপস্থিত হয়, তবে বলে, নিশ্চয় আল্লাহ্ আমার প্রতি খুব অনুগ্রহ করিয়াছেন যে, আমি তাহাদের সঙ্গে উপস্থিত হই নাই।

وَلَئِنْ أَصَابَكُمْ فَضْلٌ مِّنَ اللَّهِ لَيَقُولَنَّ كَأَن لَّمْ تَكُن بَيْنَكُمْ وَبَيْنَهُ مَوَدَّةٌ يَا لَيْتَنِي كُنتُ مَعَهُمْ فَأَفُوزَ فَوْزًا عَظِيمًا

বাংলা অর্থ:

৭৩। আর যদি তোমাদের প্রতি আল্লাহর কোন অনুগ্রহ হয়, তবে এইরূপভাবে বলে-যেন তোমাদের মধ্যে এবং তাহার মধ্যে কোন সম্পর্কই নাই-হায় ! কতই না চমৎকার হইত যদি আমিও ইহাদের সঙ্গী হইতাম, তাহা হইলে আমারও খুব সফলতা লাভ হইত।

সূরা-আন-নিসা বাংলা শানে নুযূল

১) কোন কোন সাহাবী হুযূরের খেদমতে আরয করিলেন, দুনিয়াতে হুযূরকে দেখিবার আগ্রহ হওয়া মাত্র খেদমতে হাযির হইয়া দর্শন লাভ করিতে পারি, কিন্তু বেহেশ্তে হুযূর অনেক উচ্চস্তরে অবস্থান করিবেন, সেখানে আমরা হুযূরের দর্শন লাভ করিব কেমন করিয়া? তদুত্তরে এই আয়াতটি নাযিল হয়।(লোঃ নুঃ)
২) অর্থাৎ, শত্রুপক্ষের চক্রান্ত হইতে সর্তক থাকিও এবং জিহাদের সময় ঢাল, তরবারি ইত্যাদি অস্ত্রশস্ত্র ও যুদ্ধের সরঞ্জাম লইয়া প্রস্তুত থাকিও।

فَلْيُقَاتِلْ فِي سَبِيلِ اللَّهِ الَّذِينَ يَشْرُونَ الْحَيَاةَ الدُّنْيَا بِالْآخِرَةِ ۚ وَمَن يُقَاتِلْ فِي سَبِيلِ اللَّهِ فَيُقْتَلْ أَوْ يَغْلِبْ فَسَوْفَ نُؤْتِيهِ أَجْرًا عَظِيمًا

বাংলা অর্থ:

৭৪। তবে সে ব্যক্তির উচিত আল্লাহর পথে জেহাদ করা সেসব লোকদের বিরুদ্ধে, যাহারা পরকালের বিনিময়ে পার্থিব জীবনকে গ্রহন করিয়া লইয়াছে; আর যে ব্যক্তি আল্লাহর পথে জেহাদ করিবে, অনন্তর সে নিহত হউক বা বিজয়ী হউক, আমি তাহাকে মহা বিনিময় প্রদান করিব।

وَمَا لَكُمْ لَا تُقَاتِلُونَ فِي سَبِيلِ اللَّهِ وَالْمُسْتَضْعَفِينَ مِنَ الرِّجَالِ وَالنِّسَاءِ وَالْوِلْدَانِ الَّذِينَ يَقُولُونَ رَبَّنَا أَخْرِجْنَا مِنْ هَـٰذِهِ الْقَرْيَةِ الظَّالِمِ أَهْلُهَا وَاجْعَل لَّنَا مِن لَّدُنكَ وَلِيًّا وَاجْعَل لَّنَا مِن لَّدُنكَ نَصِيرًا

বাংলা অর্থ:

৭৫। আর তোমাদের নিকট কি ওযর আছে যে, তোমরা আল্লাহর পথে জেহাদ করিবে না এবং (ঐ) দুর্বলদের জন্য-যাহাদের মধ্যে কতক পুরুষও আছে, কতক নারীও আছে, কতক শিশুও আছে, যাহারা প্রার্থনা করিতেছে যে, হে আমাদের রব্ব ! আমাদিগকে এই নগর হইতে বাহির করুন, যাহার অধিবাসীরা ভয়ঙ্কর যালেম, এবং আমাদের জন্য গায়েব হইতে কোন ওলী দাঁড় করাইয়া দিন এবং আমাদের জন্য গায়েব হইতে কোন সাহায্যকারী প্রেরণ করুন।

الَّذِينَ آمَنُوا يُقَاتِلُونَ فِي سَبِيلِ اللَّهِ ۖ وَالَّذِينَ كَفَرُوا يُقَاتِلُونَ فِي سَبِيلِ الطَّاغُوتِ فَقَاتِلُوا أَوْلِيَاءَ الشَّيْطَانِ ۖ إِنَّ كَيْدَ الشَّيْطَانِ كَانَ ضَعِيفًا

বাংলা অর্থ:

৭৬। যাহারা পূর্ণ ঈমানদার তাহারা তো আল্লাহর পথে জেহাদ করে, আর যাহারা কাফের তাহারা শয়তানের পথে সংগ্রাম করে, অতএব, হে মু‘মেনগণ !) তোমরা শয়তানের সহচরদের বিরুদ্ধে জেহাদ কর, বস্তুতঃ শয়তানের প্রচেষ্টা দুর্বলই হইয়া থাক।

সূরা-আন-নিসা বাংলা শানে নুযূল

১) অর্থাৎ, জিহাদে মুসলমানদের পরাজয় ঘটিলে মুনাফেকেরা বলে, “আমাদের প্রতি আল্লাহর অনুগ্রহ হইয়াছে, আমরা তাহাদের সঙ্গে ছিলাম না”। পক্ষান্তরে যদি মুসলমানগণ বিজয়ী হইয়া গনীমতের মাল প্রাপ্ত হন, তবে জিহাদে অংশগ্রহণ না করার জন্য আক্ষেপ করে, ইহাতে স্পষ্ট বুঝা যায় যে, তাহারা কেবল স্বার্থের জন্যই নিজদিগকে মুসলমান বলিয়া প্রকাশ করিতেছে।(বঃ কোঃ)
২) মক্কায় এইরূপ বহু মুসলমান রহিয়া গিয়াছিলেন, যাহারা দুর্বলতা ও অন্যান্য কারণে হিজ্রত করিতে সক্ষম হন নাই। কাফেরেরা তাঁহাদিগকে নানা প্রকারে যন্ত্রণা দিত, তাঁহারা মুক্তি পাইবার জন্য আল্লাহ্র দরবারে প্রার্থনা করিতেন। আল্লাহ্ তাঁহাদের দো‘আ কবূল করিলের, ফলতঃ মক্কা বিজয়ের ফলে তাঁহারা সকলেই শাস্তি ও সম্মান লাভ করিলেন। এই আয়াতে উহারই বর্ণনারহিয়াছে। (বঃ কোঃ)

সূরা-আন-নিসা বাংলা, এর আয়াত ৪১ হতে ৫৪ পর্যন্ত বাংলা অর্থ পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন-
আমাদের, ফেসবুক পেইজে লাইক, শেয়ার এবং কমেন্টস করে আমাদের সাথেই থাকুন।